ব্রেকিং নিউজঃ
Home / মতামত / এ কেমন প্রধান শিক্ষক?
ছবি: প্রতীকী

এ কেমন প্রধান শিক্ষক?

প্রধান শিক্ষক বলতেই আমাদের চোখের সামনে ভেসে উঠে আদর্শের এক উজ্জ্বল প্রতিমূর্তি। তিনি হন নিশ্চিতভাবে সুশিক্ষিত, জ্ঞানী, বুদ্ধিমান, দক্ষ প্রশাসক, নেতৃত্বের গুণাবলি সম্পন্ন, ত্যাগী, নির্লোভ, ধৈর্যশীল এক অসাধারণ ও অনুকরণীয় ব্যক্তিত্ব।

যেমনটি ছিলেন মতলবগঞ্জ জে.বি. পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের কালজয়ী প্রধান শিক্ষক ওয়ালি উল্লাহ পাটোয়ারী কিংবা হাজীগঞ্জ মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কাজী বজলুল হক।

প্রধান শিক্ষক হিসেবে যাঁরা চাঁদপুরের বিভিন্ন প্রাথমিক ও উচ্চ বিদ্যালয়ে কর্মরত, নিশ্চয়ই তাঁরা উপরোক্ত দু আদর্শ প্রধান শিক্ষকের মতো হবার জন্যে আন্তরিক প্রচেষ্টায় সদা সচেষ্ট থাকেন-এমনটি আমরা আস্থার সাথে বিশ্বাস করি। কিন্তু আমাদের এ বিশ্বাসে চরম আঘাত অনুভূত হয়, যখন দেখি একজন প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে শোনা যায়, এমনকি পত্রিকার পাতায় দেখা যায় আপত্তিকর ক্রীড়াকলাপের কিছু অভিযোগ। শুধু তা-ই নয়, যখন একজন প্রধান শিক্ষক সরকারি বই বিক্রি করতে গিয়ে ধরা পড়েন, তখন আমরা লজ্জায় ভীষণ বিব্রতবোধ করি।

চাঁদপুর কণ্ঠে মঙ্গলবার প্রকাশিত এক সংবাদ থেকে জানা যায়, গত ৬ জুন মতলব পৌর এলাকার ২৩ নং পশ্চিম মোবারকদী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুর রব সরকারি বই বিক্রি করতে গিয়ে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও এলাকার জনগণের কাছে হাতেনাতে ধরা পড়েছেন।

পরে জব্দকৃত বইগুলো উপজেলা শিক্ষা অফিসারের কাছে হস্তান্তর করেন তারা। এর আগে গত ২৯ মে দুর্নীতি, অর্থ আত্মসাৎ ও অনৈতিক কার্যকলাপের অভিযোগ এনে এই বিদ্যালয়ের সভাপতি উক্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে মতলব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট অভিযোগ করেন। এই অভিযোগে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে এসএমসি সভাপতির স্বাক্ষর জাল করা এবং শিক্ষার্থীর শ্লীলতাহানির বিষয়ও উত্থাপিত হয়েছে। যদিও এই প্রধান শিক্ষক আত্মপক্ষ সমর্থন করতে গিয়ে প্রায় সব অভিযোগই অস্বীকার করেছেন। তবে তিনি বিদ্যালয়ের অন্য সকল শিক্ষকের অনুমতি(!) নিয়ে বই বিক্রির কথা স্বীকার করেছেন।

আমরা এমন প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগগুলো তদন্তে ব্যবস্থা নিতে মতলব উপজেলা প্রশাসন ও প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগের কর্তাব্যক্তিদের সুদৃষ্টি কামনা করছি। তদন্তে কোনো অভিযোগ প্রমাণিত হলে অবশ্যই এই প্রধান শিক্ষককে যাতে কোনোরূপ ছাড় দেয়া না হয়, সে ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট আগাম জোর দাবি জানিয়ে রাখছি। তার বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেয়া যথোচিত হবে, সে ব্যাপারে আমাদের সুস্পষ্ট বক্তব্য বাঞ্ছনীয় নয়।

তবে এমন ব্যক্তির প্রধান শিক্ষক পদে অধিষ্ঠান যে বেমানান এবং তার অপসারণ যে অনিবার্যতার দাবি রাখে সেটা বলার অপেক্ষা রাখে না।

সূত্র: দৈনিক চাঁদপুর কন্ঠ

Facebook Comments

Check Also

স্মৃতিতে শিক্ষক কবির মজুমদার

রোটারিয়ান মোঃ জাহাঙ্গীর আলম হৃদয় :  যখন পড়বেনা মোর পায়ের চিহ্ন এই বাটে আমি বাইবোনা,আমি …

vv