ব্রেকিং নিউজঃ
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / অর্থাভাবে মৃত্যুপথযাত্রী রণাঙ্গনের বীর সেনানী মশ্রব আলী

অর্থাভাবে মৃত্যুপথযাত্রী রণাঙ্গনের বীর সেনানী মশ্রব আলী

রাজু আহমেদ, সুনামগঞ্জ : ভালো নেই বীর মুক্তিযোদ্ধা মশ্রব আলী (৮৪)। অর্থাভাবে বিনা চিকিৎসায় যেন মৃত্যুর প্রহর গুনছেন ৭১-এর রণাঙ্গনের এই বীর সেনানী। দীর্ঘ ৫ বছর ধরে শ্বাসকষ্ট, হার্ট দুর্বল, চােখের জটিল সমস্যা সহ নানা রােগবালাইয়ে এখন কাবু তিনি। এক সপ্তাহ ধরে প্রচন্ড শ্বাসকষ্ট নিয়ে তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হন এই বীর মুক্তিযোদ্ধা।
বৃহস্পতিবার সকালে (২৯ এপ্রিল) চিকিৎসাধীন মশ্রব আলীর শয্যাপাশে গেলে  আক্ষেপ করে বলেন, দেশ মাতৃকার টানে ১৯৭১ সালে জীবনবাজি রেখে ঝাঁপিয়ে পড়ে পাক হায়েনাদের পিচু হটিয়ে লাল-সবুজের পতাকা এনে দিয়েছি। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে আমার সহােদর বড়ভাই শহীদ হন। অথচ এই স্বাধীন দেশে গত ৫ বছর ধরে আমি অর্থাভাবে বিনা চিকিৎসায় আজ মৃত্যুপথযাত্রী। কেউ আমার খােঁজ রাখে না! আমার সন্তানরা আরােগ্য লাভের আশায় সব খুইয়েছে। এখন আমার কিছুই নেই। তিনি বলেন, আমার এই অন্তিম মূহুর্তে  “মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সহায়তার হাতটা বাড়িয়ে দিলে যে কয়দিন বাঁচি সন্তানদের নিয়ে বাঁচতে পারতাম”। অবুঝ শিশুর মতাে হাঊমাঊ কান্না করে বলা এসব কথার ভিডিও চিত্র এ প্রতিবেদকের সংরক্ষিত রয়েছে।
মশ্রব আলী সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলা সদরের মধ্যতাহিরপুর গ্রামের বাসিন্দা। তাঁর মুক্তিযােদ্ধা সনদ নং-১৭১৭৬২, মুক্তিবার্তা নং (লালবই) ০৫০২০৮০১৯৫ এবং গেজেট নং- ৩০৭৮। হাওরাঞ্চলের এ জনপদে বাউল শিল্পী হিসেবে মশ্রব আলীর পরিচিতি তুঙ্গে থাকলেও বেহেলার তারে সূর ওঠে না সেই কবে থেকে। এখন আর রাত জেগে মুক্তিযােদ্ধের গল্প শুনতে প্রতিবেশিদের আনাগোনা নেই তাঁর বাড়িতে।
আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মির্জা রিয়াদ হাসান জানিয়েছেন, গত ২২ এপ্রিল শ্বাসকষ্ট নিয়ে ভর্তি হয়েছেন মুক্তিযােদ্ধা মশ্রব আলী। এখানে তিনি সম্পূর্ণ সরকারি চিকিৎসা পাচ্ছেন। আগে উনার দুই চােখে অপারেশন হয়েছে। আশা করি আমাদের চিকিৎসায় তিনি সুস্হ হবেন। তারপরেও সরকার যেহেতু জাতীর শ্রেষ্ট সন্তানদের উন্নত চিকিৎসার জন্য সুব্যবস্হা করেছেন প্রয়ােজনে তিনি সুনামগঞ্জ-সিলেট যেতে পারেন। তিনি চাইলে আমরা সে ব্যাবস্হা করে দিব।
এদিকে পিতার উন্নত চিকিৎসাসেবা দানে প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আকূল আবেদন জানিয়েছেন মশ্রব আলীর বড় ছেলে শ্রমিকলীগ নেতা আশ্রাফুল ইসলাম। উপজেলা মুক্তিযােদ্ধা কমান্ডের সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী মাে. রৌজ আলী বলেন, জেলার যে কয়জন মুক্তিযোদ্ধা প্রথম হাতে অস্ত্র নেন তাদের মধ্যে একজন মশ্রব আলী। একজন সিনিয়র সহযােদ্ধা টাকার অভাবে ধুঁকে ধুঁকে মৃত্যুদােয়ারে ধাবিত হচ্ছেন তা মেনে নেয়া যায় না। উন্নত চিকিৎসাসেবার জন্য মুক্তিযােদ্ধো স্বপক্ষের সরকার এগিয়ে আসবেন এমন আশা এই মুক্তিযােদ্ধার।
তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পদ্মাসন সিংহ আমাদের সময় ডটকম-কে বলেন, বিষয়টি অনেকেই ফােনে জানিয়েছেন, দেখি কি করা যায়।
Facebook Comments

Check Also

মৃত্যুর আগে সেলিম ফিরতে চান চাঁদপুরের আপনজনদের কাছে

নিজস্ব প্রতিনিধি : ৪০ বছর আগে যখন বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান সেলিম মিয়া, তখন সবেমাত্র ম্যাট্রিক …

Shares
vv